দৈনিক চোখের আলো

সাহসী সৈনিকদের মূল্যায়ন না থাকলেও দলের একজন সক্রীয় কর্মী হিসেবে থাকাটাই মূখ্য। ।

 সাহসী সৈনিকদের মূল্যায়ন না থাকলেও দলের একজন সক্রীয় কর্মী হিসেবে থাকাটাই মূখ্য। সাইদুর রহমান ইমুর জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে বললেন আবেগের কথা।


লিখেছেন 
রাজ্জাক হোসাইন রাজ ভাই,


"কথায় আছে সাবেক হলে থাকে শুধু আবেগ

দুটি আবেগের কথাই বলবো•••


সময়টা ছিলো-২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচন  পরবর্তী বিএনপি জামায়েত জোট সরকারের শাসনামল।

তখন আওয়ামী লীগের জন্য রাজনৈতিক ময়দান ছিলো এক উত্তাল সাগর।অবশ্য ৭৫ পরবর্তী বিলিন হওয়া আওয়ামী লীগ সুসংগঠিত করতে সমস্ত বাঁধাকে উপেক্ষা করে দেশরত্ন শেখ হাসিনার ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মাধ্যমে পিতৃ হত্যার বিচার ও আওয়ামী লীগ কে পূনর্গঠনের মাধ্যমে দল কে ক্ষমতার নিয়ে দেশ গড়ার সুযোগ বেশী দিন জোটেনি••• ৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত মাত্র ১ বার ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ।এরপর অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট চুরির মধ্য দিয়ে আবার ক্ষমতায় আসে বিএনপি-জামাত-জোট সরকার।

সে সময় আওয়ামী লীগের সুদিন ছিলোনা আর জীবনের ঝুঁকি,মামলা,হামলার ভয়ে অনেকেই স্রোতের সাথেই গা ভাসিয়েছে।আমরা ছিলাম হাতে গোনা 


মনে পরে•••২০০৩/৪ সাল আমি তখন সাটুরিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সদ্য নির্বাচিত সাধারন সম্পাদক,

সময়ের সাহসী যোদ্বা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি/সাধারন সম্পাদক—জনি-খালিদ ভাইয়ের নেতৃত্বে সাটুরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগ শক্তিশালী ছিলো

কিন্তু আজকে ছাত্রলীগের শামীম-গোলাপ-সুমন-সবুজ-সাব্বীরদের আমলের মত এত গন জোয়ার ছিলোনা। তবুও আমার ছাত্র রাজনিতীর শিক্ষক তৎকালীন সুদর্শন ও মেধাবী ছাত্রনেতা দাউদ-মিরান ভাই এবং দেখভাল করার একমাত্র অভিভাবক সাটুরিয়া-মানিকগন্জের ছাত্র রাজনিতীর কিংবদন্তী আব্দুল মজিদ ফটোর নেতৃত্বে আমরা ছিলাম সুসংগঠিত ।।।




সেদিনের রাজপথ কাপানো সুদর্শন ছাত্রনেতা প্রিয় সাইদুর রহমান ইমু ছিলো উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক।দূরদিনে সাইদুর ভাই,ফরহাদ ভাই,আলতাফ মামা,মুনায়েম ভাই,রুবেল ভাই,প্রবাস দাদা,মামুন ভাই,এলিন ভাই,সেলিন ভাই,শওকত ভাই,আপেল মামা,আনোয়ার ভাই,ভান্ডারী,মন্জু ভাই,লিটন ভাই,রেজাউল ভাই,কাশেম ভাই,জুয়েল ভাই,সুহেল ভাই,তুলু ভাই,সুরুজ ভাই,বন্ধু তোষার,মনোয়ার,পারভেজ,বক্কর,শাহীন, সহ মাত্র কয়েকজন ছিলো সক্রীয় এবং সম্মুখ যোদ্বা,জীবন সংগ্রামে কর্ম জীবন আর সংসার নিয়েই তুষ্ট।চাওয়া পাওয়ার হিসাব নেই শেখ হাসিনার নেতৃত্বের এক উন্নত বাংলাদেশ আজ হাজার সাইদুরের চাওয়া••••আমি এবং আমার সাথে সভাপতি বর্তমান যুবলীগ নেতা বন্ধুবর মন্জু,বর্তমান সাধারন সম্পাদক মওলা সহ আমরা বেশি গর্ব বোধ করি বিরোধী দলের একজন সক্রীয় কর্মী হিসেবে•••ক্ষমতার আমলে পদবীর চাইতে।।।


সেদিনের “মুখ গুলো”সবই চেনা কিন্তু প্রায়ই অযত্ন-অবহেলা-অবমূল্যায়ন-কাওয়াতন্ত্রে আজ অনেকেই ঘড়কোনা।নতুন তারন্যদীপ্ত তরুন প্রজন্মের আগমনের ভিড়ে দলে ঢুকে পরেছে অনেক #কাল_শাপ যারা আজ প্রকৃত মুজিব সেনাদের ধংশন করে ক্ষমতার রাজনিতীতে সামনের কাতারে নীতির নির্ধারক।


সেদিন দেখলাম সিলেটে শেখ হাসিনার নামে দোকান খুলেছে “শেখ হাসিনা ষ্টোর” যারা বিএনপি জোট আমলে নৌকার পরাজয়ে নৌকার প্রতিকী আগুনে পুড়িয়ে উল্লাস করেছে তাঁরাই আজ নৌকা প্রতিকের কান্ডারী•••মুক্তিযোদ্ধে পাক হানাদারের দূসর “রাজাকার-আলবদর”পরিবারের কাছে নৌকার বৈঠা-কি আজব !!!

নৌকা কোন রাজা বাদশার পারিবারিক সম্পত্তি নয় এ নৌকা বঙ্গবন্ধুর,মুজিব প্রান জনতার তাই যারতার হাতে নৌকা জনগন মানবে না—-প্রকৃত ত্যাগীদের মূল্যায়নের প্রতিক হোক নৌকা-দেশরত্ন শেখ হাসিনার নৌকা


চ্যালেঞ্জ•••নিলাম সামনের কাতারের অনেক মানুষকেই চিনিনা,কোথায় ছিলেন,কি অবদান,কারা আপনারা•••

দ্বিমত থাকলে কমেন্টস করে জানাবেন-সম্মুখীন হবো•••


“আবেগ থেকে নেয়া”


শুভ জন্মদিন 



ভালবাসার #Saidur ভাই 

ভালবাসা অবিরাম 🌹

Post a Comment

0 Comments